———-

মিডিয়ায় ক্যারিয়ার গড়ুন

জীবন বদলে যাবে

সময়ের পরিবর্তনের সাথে পরিবর্তিত হচ্ছে মানুষের পেশাকেন্দ্রিক চিন্তাভাবনা। পৃথিবীর সৌন্দর্যকে অনুধাবন করে অনেকেই নিজেকে আবিষ্কার করছেন সুন্দর ও পরিপাটি হিসেবে। অনেক তরুণরাই ধাবিত হচ্ছেন বিভিন্ন গ্ল্যামারস পেশার দিকে। এ ধরনের পেশার তালিকায় বর্তমানে যে ক্ষেত্রটি উঠে আসছে তা হলো গণমাধ্যম বা মিডিয়া। আর ছোট পর্দার মোহনীয় আকর্ষণের কারণে ইলেকট্রনিক মিডিয়া রয়েছে পছন্দের প্রথমে। এখানকার ক্যারিয়ারে খ্যাতি, সুনাম, সুপরিচিতির পাশাপাশি রয়েছে উজ্জ্বল জীবনের হাতছানি। বিশ্বব্যাপী তো বটেই, বাংলাদেশেই রয়েছে এ পেশায় ক্যারিয়ার গড়ার বিশাল ক্ষেত্র। আজকে একুশ শতকে দাঁড়িয়ে মিডিয়া কতটা এগিয়েছে তা বলাই বাহুল্য। ১৫ বছর আগেও মানুষ ভাবেনি মিডিয়া এ পর্যায়ে পৌঁছাবে। এর ক্ষেত্র এখন শুধু সংবাদপত্র বা টেলিভিশন চ্যানেলেই সীমাবদ্ধ নয়, এসেছে এফএম রেডিও, অনলাইনভিত্তিক সংবাদ সংস্থা এবং অনলাইন পত্রিকাও। দেশে টিভি চ্যনেলের সংখ্যা এখন ২৬। সম্প্রচারে রয়েছে ২০টির মতো এফএম এবং কমিউনিটি রেডিও। সারাদেশে বড়-ছোট প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়ার সংখ্যা সহস্রাধিক । ক্রমপ্রসারমান সম্প্রচার জগত। সাম্প্রতিক সময়ে গণমাধ্যমগুলো এই বিভাগের শিক্ষার্থীদের পেশায় নিয়োগ দিতে আগ্রহ দেখাচ্ছে।
পৃথিবীতে বেঁচে থাকতে হলে মানুষকে একটি পেশা বেছে নিতে হয়। হাজারো পেশার মধ্যে সাংবাদিকতা একটি মহৎ ও সম্মানজনক পেশা। তবে এর সঙ্গে আর অন্য দশটি পেশার পার্থক্য অনেক। সাংবাদিক হতে হলে নানা বিষয়ে পড়াশুনা করতে হয়। এ পেশায় নিজের রুচি ও মননের চর্চা করা যায়। তবে আপনাকে অবশ্যই নিজের চোখ-কান খোলা রাখতে হবে। সাংবাদিকতায় যারা আসেন তাদের জন্য সবচেয়ে বড় পুরস্কার হচ্ছে মানুষের পাশে দাঁড়ানো। লেখালেখির ক্ষমতা বাড়ার ফলে শুধু সাংবাদিকতা পেশাই নয়, আপনার সম্ভাবনার দ্বার উন্মুক্ত হবে সাংবাদিকতা পেশার বাইরের জগতেও। মানুষের কাছাকাছি পৌঁছা এবং সম্মানই আপনার শ্রেষ্ঠ পুরস্কার। শিক্ষা, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও প্রাতিষ্ঠানিক অনুষ্ঠান ও সভা সেমিনারে আপনার প্রথম সারিতে বসার সম্মানজনক সুযোগ শুধু এ পেশাতেই সম্ভব। তাই সাংবাদিকতা একটি সেলিব্রেটি পেশা।

প্রিন্ট মিডিয়া (পত্রিকা, ম্যাগাজিন, সাময়িকী ইত্যাদি) : সম্পাদকীয় বিভাগ, প্রশাসনিক বিভাগ, বার্তা বিভাগ, রিপোর্টিং বিভাগ, প্রুফ এডিটিং বিভাগ, ফটোগ্রাফি বিভাগ, অলংকরণ বিভাগ, বিজ্ঞাপন বিভাগ, প্রচার বিভাগ, রেফারেন্স লাইব্রেরি, প্রিন্টিং/ছাপা বিভাগ।

ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া (রেডিও, টেলিভিশন) : নিউজ বিভাগ-রিপোর্টিং, নিউজ এডিটর, জয়েন্ট নিউজ এডিটর, ডেস্ক রিপোর্টার, নিউজ প্রডিউসার, নিউজ প্রেজেন্টার, অনলাইন এডিটর, প্রোগ্রাম প্রডিউসার, ভিডিও এডিটর, গ্রাফিক্স ডিজাইনার, এনিমেটর, সেট ডিজাইনার, চিত্রগ্রাহক, ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ব্রডকাস্টিং এক্সিকিউটিভসহ নানা ধরনের কর্মসংস্থান। ইলেক্ট্রনক মিডিয়ায় সাধারণত নিয়ম হলোথ যেকোনো বিভাগে আপনি কাজ করতে প্রথমেই জানতে হবে বেসিক জার্নালিজম।

অনলাইন মিডিয়া : বাংলাদেশে পূর্বে প্রিন্ট মিডিয়া (সংবাদপত্র) ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় কাজের সুযোগ থাকলেও বর্তমানে ইন্টারনেটের কল্যাণে আরেকটি ক্ষেত্রে কাজের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। সেটি হলো- অনলাইন মিডিয়া।

সম্পাদকীয় বিভাগ, প্রশাসনিক বিভাগ, বার্তা বিভাগ, রিপোর্টিং বিভাগ, প্রুফ এডিটিং বিভাগ, ফটোগ্রাফি বিভাগ, অলংকরণ বিভাগ, বিজ্ঞাপন বিভাগ, রেফারেন্স লাইব্রেরি। এছাড়াও এর চেয়ে কমবেশি বিভাগ থাকতে পারে। এটি সম্পূর্ণ নির্ভর করবে ঐ প্রতিষ্ঠানের উপর।

সাংবাদিক হলে যেসব গুণ থাকা দরকার : ১. সিদ্ধান্ত ২. সততা ৩. ব্যক্তিত্ব ৪. ব্যবহার ৫. সাহসিকতা ৬. বস্তুনিষ্ঠতা ৭. অধ্যবসায় ৮.নিয়মানুবর্তিতা ও যোগাযোগ ৯. দায়বদ্ধতা ১০. বিচক্ষণতা

সাংবাদিক হতে শিক্ষাগত যোগ্যতা : ১. জাতীয় পত্রিকা/অনলাইন/ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় কাজ করতে হলে তাকে কমপক্ষে অর্নাস অথবা সমমানের ডিগ্রিধারী হতে হবে। তবে শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা মফস্বলের ক্ষেত্রে শিথিলযোগ্য। সাংবাদিকতার উপর স্নাতক ও স্নাতকোত্তর থাকলে ভালো। সাংবাদিকতায় প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা না থাকলেও সাংবাদিকতার উপর যেকোনো কোর্স করলে সহজেই সাংবাদিকতার পেশায় হাতেখড়ি হতে পারে। একটি সফল সর্ট কোর্সের পর পিজিডি ও মাস্টার্স করতে পারলে সাংবাদিক হিসাবে একটি শক্ত ভিতের উপর দাঁড়ানো সম্ভব।

সাংবাদিকতায় ক্যারিয়ার কোর্স : এই চ্যালেঞ্জিং পেশায় আসতে প্রথমে কোনো জাতীয় বা স্থানীয় দৈনিকে কাজের সুযোগ করে নিতে পারলে ভালো। তাছাড়া বর্তমানে সাংবাদিকতার উপর বিভিন্ন কোর্স করেও আপনি হতে পারেন একজন পেশাদার সাংবাদিক। কোর্স করে আপনি বিভিন্ন পত্রিকায় আপনার লেখা পাঠাতে থাকুন ও সেই সঙ্গে আপনার বায়োডাটাও পাঠাতে থাকুন। এখন সম্পূর্ণ ঢাকার মানে বগুড়ায় সাংবাদিকতার উপর কোর্স পরিচালনা করছে জার্নালিজম ইনস্টিটিউট অব বগুড়া (জেআইবি)।

জেআইবির ৩ মাসব্যাপী সার্টিফিকেট কোর্স :

সাংবাদিকতায় অধ্যয়ন, প্রশিক্ষণ ও গবেষণা বিষয়ক প্রতিষ্ঠান জার্নালিজম ইনস্টিটিউট অব বগুড়া (জেআইবি)র সাংবাদিকতা বিষয়ক ৩ মাসব্যাপী সার্টিফিকেট ক্যারিয়ার কোর্স রয়েছে। যারা ক্যারিয়ার হিসেবে সাংবাদিকতায় প্রতিষ্ঠিত হতে ইচ্ছুক তাদের জন্য কোর্সটি অত্যন্ত সহায়ক হবে। এতে ইলেক্ট্রনিক, প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়াকে একত্রিত করে একটি সমন্বিত কোর্স হিসেবে সাজানো হয়েছে। কোর্সটি অনার্স ও সমমান লেবেলের ছাত্র এবং অন্যান্য পেশার সবার জন্য উন্মুক্ত। জেআইবির প্রশিক্ষক হিসেবে আছেন দশ জনেরও বেশি নিয়োগ প্রাপ্ত শিক্ষক। থাকছেন বগুড়ার প্রথম শ্রেণীর সাংবাদিকবৃন্দ। তাছাড়াও থাকছেন দেশের ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব, গবেষক এবং বেশ কয়েকজন নবীন-প্রবীণ সংবাদকর্মী। সংবাদপত্র, রেডিও, টেলিভিশন এবং অনলাইন মিডিয়ায় সাংবাদিক হিসেবে কাজ করতে আর আলাদা কোনো কোর্স প্রয়োজন হবে না এমন করেই এ কোর্সটি সাজানো হয়েছে। স্থানীও সংবাদপত্র ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় হাতে-কলমে শেখার ব্যবস্থা রয়েছে। কোর্স চলাকালীন ৩ টি পরীক্ষার মাধ্যমে সনদ দেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়াও কোর্স শেষে মিডিয়ায় স্ব স্ব যোগ্যতা অনুযায়ী বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় কর্মসংস্থান বা শিক্ষানবিস হিসেবে কাজের ক্ষেত্রে সার্বিক দিকনির্দেশনা এবং সহযোগিতার সুযোগও রয়েছে। সব শিক্ষার্থীর জন্য রয়েছে প্রয়োজনীয় তাত্ত্বিক এবং ব্যবহারিক ক্লাস। প্রতি বিষয়ের উপর প্রয়োজনীয় লেকচারশিট প্রদানসহ ভিজ্যুয়াল প্রেজেন্টেশনের ব্যবস্থা রয়েছে।

যোগাযোগ
জার্নালিজম ইনস্টিটিউট অব বগুড়া (জেআইবি)
বাড়ি নং- সি/০৩, রোড- ০৫,
জান ই সাবা হাউজিং কমপ্লেক্স (মসজিদ সংলগ্ন),
সরকারী আজিজুল হক কলেজের (নতুন ভবন) সামনে,
বগুড়া।

ফোনঃ ০১৭১২ ৫৯৬১৪৪/ ০১৯১৬ ৩১৫৯০২

www.journalisminstitutebd.com