———-

‘ যুগে যুগে জনে জনে,

বাংলা থাকুক সবার প্রাণে ’

শফি মাহমুদ    

বিশ্বজগতের প্রাণিকূলের বেঁচে থাকার দুটি অপরিহার্য উপাদান হলো শ্বাস-প্রশ্বাস আর তার ভাষা। প্রাণিভেদে ভাষারও ভিন্নতা বিদ্যমান। সৃষ্টিকর্তার সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টি যেমন মানুষ, তেমনি মানুষের জন্য শ্রেষ্ঠ নিদর্শন হলো তার ভাষা। ভাষাবিহীন মানুষ মৃত। জাতি, সমাজ, ধর্ম, দেশভেদে ভাষার ভিন্নতা থাকলেও প্রত্যেকটা মানুষের সুখ, দুঃখ, হাসি, কান্না, আনন্দ, বেদনা, হতাশার অভিব্যক্তি একই রকমের। এখানে নেই কোন ভিন্নতা। বিশ্বের সাতশ’ কোটিরও অধিক মানুষ হাজারো ভাষার মাধ্যমে প্রতিনিয়ত তাদের ভাবের আদান প্রদান করে চলেছে। ন্যাশনাল এনসাইক্লোপিডিয়ার তথ্য অনুযায়ী বর্তমানে বিশ্বে ৭ হাজার ৩শ’ ৭৮টি ভাষা এবং প্রায় ৩৯ হাজার ৪শ’ উপভাষা রয়েছে।

মাতৃভাষা হিসেবে ব্যবহারকারীর সংখ্যার ভিত্তিতে বর্তমানে বিশ্বের প্রধান ১০টি ভাষার শীর্ষে রয়েছে চীনের মান্ডারিন ভাষা। বর্তমানে এই ভাষায় বিশ্বের প্রায় ১০৫ কোটি মানুষ কথা বলে। যা বিশ্বের মোট জনসংখ্যার প্রায় ১৫ শতাংশ। দ্বিতীয় স্থানে থাকা স্প্যানিশ ভাষা ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৫০ কোটি। বিশ্বের মোট ৩৭ কোটি মানুষের মাতৃভাষা ইংরেজি হলেও বর্তমানে বিশ্বের সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষ এই ভাষা ব্যবহার করছে। যার সংখ্যা প্রায় ১শ’ ৫০ কোটি। চতুর্থ স্থানে থাকা হিন্দী ভাষী মানুষের সংখ্যা ৪৯ কোটি। বিশ্বের ৪৫ কোটি মানুষের ব্যবহৃত ভাষা হিসেবে আরবী’র স্থান রয়েছে পঞ্চমে। ষষ্ঠ স্থানে থাকা পর্তুগীজ ভাষাভাষী মানুষের সংখ্যা ২৪ কোটি। সারা বিশ্বের ২৫ কোটি মানুষের ব্যবহৃত ভাষা হিসেবে বাংলা’র স্থান রয়েছে সপ্তমে। এছাড়া অষ্টম, নবম ও দশম স্থানে থাকা রুশ, জাপানীজ ও পাঞ্জাবী ভাষায় কথা বলা মানুষের সংখ্যা যথাক্রমে ২৩ কোটি, ১৩ কোটি ও ১১ কোটি।

শীর্ষ ১০টি ভাষার পরিসংখ্যান

অবস্থান                     ভাষা                     মাতৃভাষা হিসেবে ব্যবহারকার        মোট ব্যবহারকারী

প্রথম                   মান্ডারিন (চায়না)                       ৯৩ কোটি                     ১০৫ কোটি                                                                                                                                                                                                                

দ্বিতীয়                    স্প্যানিশ                                 ৩৯ কোটি                     ৫০ কোটি                                                                                                                                                                                                                                                            

তৃতীয়                    ইংরেজি                                   ৩৭ কোটি                   ১৫০ কোটি                                                                                                                                                                                                                                                                 

চতুর্থ                     হিন্দী ২৯                               কোটি ৫০ লাখ                  ৪৯ কোটি                                                                                                                                                         

পঞ্চম                     আরবী                                   ২৮ কোটি                     ৪৫ কোটি                                                                                                                                                                                                                                                      

ষষ্ঠ                      পতুগীজ                                  ২১ কোটি                       ২৪ কোটি                                                                                                                                                                                          

সপ্তম                     বাংলা                                   ২০ কোটি ৫০ লাখ              ২৫ কোটি                                                                                                                                                                          

অষ্টম                     রুশ                                       ১৬ কোটি                     ২৪ কোটি                                                                                                                                                                                                                                                            

নবম                    জাপানীজ                                 ১৩ কোটি                      ১৪ কোটি                                                                                                                                                                                          

দশম                    পাঞ্জাবী                                    ৯ কোটি ৬০ লাখ            ১১ কোটি ২০ লাখ                                                                                                                                

গোটা বিশ্বে অসংখ্য ভাষার প্রচলন থাকলেও এর মধ্যে প্রায় দুই হাজার ভাষা রয়েছে যেসব ভাষায় কথা বলে গড়ে মাত্র এক হাজার মানুষ। ১৩শ’ টি ভাষায় কথা বলে গড়ে এক লাখ থেকে আড়াই লাখ মানুষ। ৭শ’ ৫০টি ভাষায় কথা বলে গড়ে ৩ লাখ থেকে ৯ লাখ। ৪শ’টি ভাষায় কথা বলে গড়ে ১০ লাখ থেকে ২৮ লাখ। ২শ’ টি ভাষায় কথা বলে গড়ে ৩০ লাখ থেকে ১ কোটি মানুষ। ৮০টি ভাষায় কথা বলে গড়ে ১ কোটি থেকে আড়াই কোটি মানুষ। ৪০টি ভাষায় কথা বলে গড়ে ৩ কোটি থেকে ১০ কোটি মানুষ। ১৩টি টি ভাষায় কথা বলে গড়ে ১০ কোটি থেকে ৪০ কোটি মানুষ। আর ২টি মাত্র ভাষায় কথা বলে গড়ে ১শ’ কোটিরও অধিক মানুষ। সেই ভাষা দুটি হলো ইংরেজি ও মান্ডারিন।

জনসংখ্যা ও আয়তনের দিক থেকে বিশ্বে অসংখ্য বিশাল দেশ থাকলেও মাত্র ৪ লাখ ৬৩ হাজার বর্গকিলোমিটার আয়তনের দেশ পাপুয়া নিউগিনিতে সর্বোচ্চ ৮২০টি ভাষার প্রচলন রয়েছে। এছাড়াও ইন্দোনেশিয়ায় ৭৪২, নাইজেরিয়ায় ৫১৬ এবং ভারতে ৪৪২ টি ভাষার প্রচলন রয়েছে। মাতৃভাষার ক্ষেত্রে শীর্ষস্থানে না থাকলেও জনপ্রিয় আন্তর্জাতিক ভাষা ও বিভিন্ন দেশের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে ব্যবহারের ক্ষেত্রে বর্তমানে ইংরেজি একটি অপ্রতিদ্বন্দ্বী ভাষা হিসেবে স্বীকৃত। বিশ্বের ৫৮টি দেশের দাপ্তরিক ভাষা এখন ইংরেজি। দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে এর পরের স্থানেই রয়েছে ফ্রেঞ্চ ভাষা। 

শীর্ষ ১০টি ভাষার তালিকায় ফ্রেঞ্চ ভাষা স্থান করে নিতে না পরলেও ৩০টি দেশের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে এটি স্বীকৃত। ২৪টি দেশের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে ব্যবহৃত আরবী’র অবস্থান তৃতীয়। ২০টি দেশের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে স্প্যানিশ এবং ৯টি দেশের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে ব্যবহৃত পর্তুগীজ ভাষার স্থান যথাক্রমে চতুর্থ ও পঞ্চম। দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে বাংলা আমাদের দেশের পাশাপাশি সিয়েরালিওন ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা ও আসামে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। এছাড়াও আন্দামান ও নিকোবার দ্বীপপুঞ্জেও বাংলা অন্যতম ভাষা হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

নানা রকম বৈচিত্র্য আর ব্যতিক্রমের মধ্য দিয়েই টিকে আছে বিশ্বের ভাষাগুলো। ইংরেজি ভাষায় সর্বোচ্চ ২ লাখ ৫০ হাজার শব্দ রয়েছে। ‘ইড়ড়শশববঢ়বৎ’ ইংরেজি ভাষায় একমাত্র শব্দ যাতে তিনটি অক্ষর দুইবার আছে। এছাড়াও ইংরেজি  ‘ওহফরারংরনরষরঃু’ একমাত্র শব্দ যাতে একটি ঠড়বিষ  সর্বোচচ ছয় বার ব্যবহৃত হয়েছে। অন্যদিকে জাপানীজ ভাষায় ‘পানি’ বলে কোন শব্দ নেই। আছে ‘ওজু’ আর ‘মিজু’। ওজু হলো গরম পানি আর মিজু অর্থ ঠান্ডা পানি। জাতিসংঘের ১৯৪৮ সালের মানবাধিকার সংক্রান্ত ঘোষণা পত্রটি মোট ৩২২টি ভাষায় প্রকাশিত হয়েছে।

মাতৃভূমির স্বাধীনতার জন্য পৃথিবীতে জীবন উৎসর্গের অসংখ্য ইতিহাস থাকলেও মাতৃভাষা রক্ষার জন্য রক্তক্ষয়ী ইতিহাস একমাত্র বাংলা ভাষারই রয়েছে। সালাম, বরকত, রফিক ও জোব্বারের মতো বেশ কয়েকজন শহীদের রক্তের বিনিময়ে বায়ান্ন’র ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে বাংলা ভাষা সগর্বে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। ১৯৯৮ সালে কানাডা প্রবাসী রফিক ও সালাম নামের দুই বাংলাদেশীর অক্লান্ত প্রচেষ্টায় ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর জাতিসংঘের এক অধিবেশনে ২১ ফেব্র“য়ারীকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়। এর মধ্য দিয়ে আমাদের প্রাণের ভাষা বাংলা অনন্য মর্যাদায় আসীন হয়। যে দেশের বীর সেনারা আন্তর্জাতিক শান্তি রক্ষা প্রতিষ্ঠায় বিভিন্ন দেশে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে, যে ভাষার আন্দোলনের দিনটিকে জাতিসংঘ আন্তর্জাতিক একটি দিবস হিসেবে নিজেদের করে নিয়েছে সেই বাংলা ভাষাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ৬টি ভাষার পাশাপাশি সপ্তম দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার জন্য আমরা জোরালো ভাবে দাবী জানিয়ে কুটনৈতিক প্রচেষ্টা চালাতে পারি। এতে বাংলা ভাষার বি¯তৃতি ঘটার পাশাপাশি এর ভিত্তি আরো সুদৃঢ় হবে। নদীর স্রোতের মতো চড়াই উৎরাই পেরিয়ে নানা পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে ভাষা ধাবিত হয় আগামীর পথে। স্রোতের অভাবে অসংখ্য নদী যেমন বিলীন হয়ে যায়। তেমনি দিনের পর দিন অনেক ভাষা হারিয়ে যাচ্ছে কালের অতল গহবরে। আবার অসংখ্য ভাষা তার স্বকীয়তা দিয়ে মানুষের মুখে মুখে টিকে থাকে যুগ যুগান্তরে। বর্তমানে মিশ্র সংস্কৃতি তথা বিশ্বায়নের আগ্রাসনে বাংলাসহ বিভিন্ন ভাষা অস্তিত্বের সংকটে পতিত হয়েছে। সকলের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টায় আগামী প্রজন্মকে সংস্কৃতির এই আগ্রাসন থেকে মুক্ত না রাখতে পারলে বাংলার মতো অন্যতম প্রাচীন ভাষাও হারিয়ে ফেলতে পারে তার স্বকীয়তা। কবিতার ভাষায় বলতে চাই-

                                

                           যুগে যুগে জনে জনে,

                                  বাংলা থাকুক সবার প্রাণে।

                              বাংলা ছুটুক গল্প গানে,

                                   বাংলা বাঁচুক সবার মনে।

আজকের এই ঐতিহাসিক দিনে সশ্রদ্ধ চিত্তে স্মরণ করছি বাংলা ভাষার জন্য আত্মত্যাগী সকল শহীদ ও ভাষা সৈনিকগণকে।

 

লেখক পরিচিতিঃ শফি মাহমুদ

প্রাক্তন সাংবাদিক, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস)

প্রভাষক, ব্যবস্থাপনা বিভাগ

সরকারি আজিজুল হক কলেজ, বগুড়া